তানাজীর আনসাং কাহিনীর ধারালো তলোয়ারে বছরের শুরুতেই তোলপাড় বক্স অফিস

ঋদ্ধিমান রায়, আগামী কলরব: প্রথম ট্রেলার মুক্তির পর প্রবল জনপ্রিয়তার ফলে ২০১৯ এর শেষের দিকে দ্বিতীয় ট্রেলারসহ গানগুলি যখন পরপর সাধারণ দর্শকের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হল, তখনই আঁচ করা গিয়েছিল, নতুন বছরের গোড়াতেই ইতিহাস রচনা করতে চলেছে টিম ‘তানাজী: দ্য আনসাং ওয়ারিয়র‘। কিন্তু মুক্তির প্রথমদিনেই পরিষ্কার হয়ে গেল, ছবিটি শুধুমাত্র ইতিহাস রচনা করতেই নামেনি, সেই সঙ্গে বলিউডের বহু কঠিন কঠিন রেকর্ড ভাঙতে চলেছে। মুক্তির দিনেই তানাজী কামালো ১৫ কোটির বেশি। আর প্রথম সপ্তাহের শেষে এই রাশি প্রায় ১১৭ কোটি।

বেশ কয়েক বছর ধরেই ভারতের ইতিহাস ও গৌরবের বিভিন্ন কাহিনীকে পর্দায় চিত্রায়ণের একটা ট্রাডিশন দেখা যাচ্ছে বলিউডে। এগুলির মধ্যে নবতম সংযোজন তানাজী: দ্য আনসাং ওয়ারিয়র। ছবিটি বড় বাজেটের হলেও স্থূল বাণিজ্যসর্বস্ব নয়, বরং প্রত্যেক ভারতীয়ের হৃদয়কে অতি যত্ন সহকারে ছবির এক একটি মুহূর্তের সঙ্গে বেঁধে রাখার প্রচেষ্টা চালানো হয়েছে, যার ফলে ইতিমধ্যেই আপামর দেশবাসীর মন জয় করতে সক্ষম হয়েছে তানাজী। সংক্ষেপে পর্যালোচনা করা যাক ছবির মূল বিন্দুগুলিকে নিয়ে।

ছবির পরিচালক ওম রাওয়াত

একটি ছবির কাহিনী-সংলাপ, নির্দেশনা, সিনেমাটোগ্রাফি, গান ইত্যাদি উৎকৃষ্টমানের হলেও মূল চরিত্রের খারাপ অভিনয় যে ছবিটিকে আদ্যোপান্ত ফ্লপ তালিকায় নিয়ে যেতে পারে, তা সম্প্রতি প্রমাণ করেছে আশুতোষ গোয়াড়েকরের ‘পানিপথ’। তানাজীর ক্ষেত্রে অভিনয়ে বাজিমাত করেছেন প্রত্যেক মূল চরিত্র। তানাজীর ভূমিকায় অজয় দেবগণ, উদয়ভান সিং রাঠোরের ভূমিকায় সঈফ আলি খান এবং তানাজীর স্ত্রী সাবিত্রীবাঈয়ের ভূমিকায় কাজল দেবগণ এর তিনজনই অভিজ্ঞ, এক কথায় জাত অভিনেতা। তাঁদের বাদ দিলে বিশেষ নজর কাড়েন ছবির অন্যতম চরিত্র ছত্রপতি শিবাজীর ভূমিকায় বলিউডে নবীন শরদ কেলকার। শুধুমাত্র ছত্রপতি শিবাজীর লুক তৈরিতে নয়, পাশাপাশি সীমিত সময়ের অভিনয়ের মধ্য দিয়ে শরদ জয় করতে পেরেছেন দর্শকদের শিবাজী-সিঞ্চিত আবেগকে। উদয়ভানের চরিত্রে পদ্মাবতের আলাউদ্দিন খিলজির ছায়া থাকলেও মৌলিক অভিনয়ের মধ্য দিয়ে উদয়ভান চরিত্রটিকেও দুর্ধর্ষ এক সমান্তরাল খলনায়ক হিসেবে পৃথক স্থান করে দিয়েছেন সঈফ।
কাহিনী ও নির্দেশনার ক্ষেত্রে যথেষ্ট পেশাদারিত্বের পরিচয় দিয়েছে টিম তানাজী। শিবাজী মহারাজের অন্যতম সেনাপতি সুবেদার তানাজী মালুসরের রাতের অন্ধকারে দুঃসাহসিক কোন্ডানা দুর্গ আক্রমণের রোমহর্ষক ঘটনা নিয়ে পূর্বেই আমরা ব্লগ নির্মাণ করেছি (১৬৭০ সালে তানাজীর কোন্ডানা দুর্গ আক্রমণ ছিল এক সার্জিক্যাল স্ট্রাইক)। ইতিহাসকে অপরিবর্তিত রেখে দর্শক-মানসকে তৃপ্ত করার জন্য কোথাও কোথাও ঘটনা ও নাটকীয়তার সামান্য সংযোজন-বিয়োজন প্রক্রিয়ায় নিখুঁত বীররস তৈরিতে সক্ষম হয়েছেন কাহিনীকার প্রকাশ কাপাডিয়া। সেইসঙ্গে বাড়তি পাওনা সংলাপ গুলি যা দর্শকের হৃদয়াবেগকে উথলিয়ে রোম খাড়া করে দেওয়ার শক্তি রাখে।
আলাদা কৃতিত্বের দাবি করবেন অবশ্যই পরিচালক ওম রাওয়াত। বুদ্ধিদীপ্ত গ্রাফিক্স-প্রযুক্তি ও সিনেমাটোগ্রাফির ছোঁয়া দিয়ে দর্শককে পর্দা থেকে চোখ সরানোর সুযোগটুকু দিতে ছাড়েননি তিনি।

ছবির একটি দৃশ্যে ছত্রপতি শিবাজীর ভূমিকায় শরদ কেলকর

অন্যদিকে, তানাজীর আনসাং কাহিনীকে সুপারহিটের দরজায় পৌঁছে দিতে অনস্বীকার্য ছবির গানগুলির ভূমিকাও। ‘ঘমান্ড কর‘, ‘শঙ্করা রে শঙ্করা‘ কিংবা ‘মাই ভবানী‘র মত বীররসে ঠাশা গানের পাশাপাশি স্বামী বিয়োগের পর লোকচক্ষুর অন্তরালে স্বামীর শেষ ইচ্ছার মান রাখতে সাবিত্রীবাঈয়ের শৃঙ্গার করার দৃশ্যে রচিত ‘তিনক তিনক শৃঙ্গার করুঁ‘ গানটির পরতে পরতে থাকা করুণ রসের ছোঁয়া দর্শককে অকৃত্রিম ভাবাপ্লুত করে তোলে। ছবির থিম সংটি ইতিমধ্যেই জায়গা করে নিয়েছে লক্ষ লক্ষ তানাজীপ্রেমির কলার টিউনে।

তানাজী: দ্য আনসাং ওয়ারিয়র সফল ঐতিহাসিক ছবি হিসেবে বিবেচিত হলেও একটি গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক তথ্যকে কাহিনীতে পরিবেশন করা হয়নি। ইতিহাস বলে, কোন্ডানা দুর্গের খাড়া পাথর বেয়ে ওঠার জন্য তানাজীর সহায় ছিল তাঁরই পোষা প্রিয় পাহাড়ী গোসাপ যশবন্তী। এই সরিসৃপটির লেজের সঙ্গে দড়ি বেঁধে দুর্গের মাথায় চড়তে সক্ষম হন তানাজী ও তাঁর সেনারা। কিন্তু ছবিতে এই গুরুত্বপূর্ণ প্রসঙ্গটি সম্পূর্ণভাবেই বাদ রেখে তানাজী চরিত্রকে উস্কে দিতে কিছুটা কল্পনার আশ্রয় নেওয়া হয়েছে এই ক্ষেত্রে।

দুর্গ জয়ের দৃশ্যে তানাজীর ভূমিকায় অজয় দেবগণ

সমস্ত দিক বিচার করে তানাজী: দ্য আনসাং ওয়ারিয়র ছবিটি খাঁটি জাতীয়তাবোধ এবং অজানা ইতিহাসের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দলিল হিসেবে ভারতীয় সিনেমা জগতে স্থায়ী আসন লাভ করবে একথা নির্দ্বিধায় বলা যায়। অন্যদিকে, দেশের মধ্যে গজিয়ে ওঠা দেশবিরোধী শক্তির মোকাবিলায় ভারতীয় দেশাত্মবোধ ও সংস্কৃতির প্রতিনিধিত্বকারী এই ছবিটির বর্তমান যুব সমাজের কাছে প্রেরণাদায়ক হিসেবে সামাজিক মূল্যও অনস্বীকার্য।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s