শিক্ষক দিবসের আলোয় সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণণ

সুস্মিত ব্যানার্জী, আগামী কলরব: আমরা সবাই জানি, ৫ই সেপ্টেম্বর শিক্ষক দিবস, কিন্তু এই বিশেষ দিনের তাৎপর্য আমাদের আনেকেরই অজানা। ১৮৮৮ সালের ৫ই সেপ্টেম্বর ডঃ সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণণের জন্মদিন, যিনি ছিলেন একাধারে এক মহান শিক্ষক, শিক্ষাবিদ এবং ভারতরত্ন উপাধির অধিকারী। তিনি স্বাধীন ভারতের প্রথম উপরাষ্ট্রপতি এবং দ্বিতীয় রাষ্ট্রপতি (১৯৬২)। শিক্ষাক্ষেত্রে তাঁর অসামান্য অবদানের কথা মাথায় রেখে ভারতে তাঁর জন্মদিন শিক্ষক দিবস হিসেবে পালিত হয়।


শিক্ষা জাতির মেরুদণ্ড, শিশুরা জাতির ভবিষ্যত। শিশুদের মানুষ হিসেবে গড়ে ওঠার পিছনে একজন শিক্ষকের অবদান অনস্বীকার্য। আমাদের কর্তব্য, শিক্ষকদের যথাযথ সম্মান দেখানো, তাঁদের উপযুক্ত মর্যাদা দেওয়া। প্রতি বছর শিক্ষক দিবসে ভারতের রাষ্ট্রপতি নিজহাতে শিক্ষকদের জাতীয় পুরষ্কার প্রদান করেন। এই পুরষ্কারের মাধ্যমে প্রাথমিক, মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে যে সকল শিক্ষক মহাশয় বিশেষ অবদান রেখেছেন, তাঁদের সম্মানিত করা হয়।


ডঃ সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণণ তৎকালীন ভারতবর্ষের একজন প্রখ্যাত লেখক ছিলেন। তাত্ত্বিক, ধর্মীয়, নৈতিক, শিক্ষামূলক এবং আরও নানা বিষয়ে তাঁর রচনা শিক্ষাজগতকে সমৃদ্ধ করেছে। তিনি রাষ্ট্রপতি থাকাকালীন একবার তাঁর কয়েকজন বন্ধু এবং ছাত্র তাঁকে অনুরোধ করেন, তাঁর জন্মদিন পালন করতে। জবাবে বিনীতভাবে তিনি জানান, ৫ই সেপ্টেম্বর দিনটিকে শিক্ষক দিবস হিসাবে পালন করা হোক, তাঁর জন্মদিন হিসেবে নয়, এটাই তাঁর একান্ত ইচ্ছা। এর থেকেই বোঝা যায়, শিক্ষকদের প্রতি তাঁর কতখানি সহমর্মিতা ছিল। সেই সময় থেকে ৫ই সেপ্টেম্বর শিক্ষক দিবস হিসাবে পালিত হয়।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s